PPH তে কাজ পাওয়ার কিছু উপায় আর সাথে কিভাবে লিখবেন ভাল কভার লেটার।

FreelancingPeopleperhour এখন যারা অ্যাকাউন্ট করেনি তারা এখনি অ্যাকাউন্ট করে নেন আর আমার আগের নোটগুলা একটু দেখে নিয়েন হয়ত আপনাদের কাজে লাগতে পারে।

অ্যাকাউন্ট  করার জন্য এই লিংকে গিয়ে আজকেই অ্যাকাউন্ট করে ফেলেনঃ www.peopleperhour.com/

পিপিএইচে জমার ব্যাপারগুলা আপনাদের সাথে আগের নোটগুলাতে শেয়ার করেছি। আজকে আর একটু করছি।  আপনি যখন কোন hourlie পোস্ট করবেন তখন ঐ hourlie টা আপনার টুইটার, পিন্টারেস্ট অ্যান্ড গুগুল+ শেয়ার করবেন। আর শেয়ার করার জন্য সব সময় # ট্যাগ ব্যাবহার করবেন। মানে আপনার hourlie tiitle # ট্যাগ ব্যাবহার করবেন। যেমন , ফেসবুক # লিখে তারপর কিছু লিখলে যেমন ঐ লেখাগুলা নীল হয়ে যায় তেমনি টুইটার, গুগুল, পিন্টারেস্টে লিঙ্ক হয়ে যায়। এতে আপনার Hourlie targeted clients অনেক বেড়ে যাবে ! এভাবে প্রতিদিন ২-৩ টা করে টুইট, পিন, শেয়ার করলে দেখেবন আপনি ভাল ফলাফল পাচ্ছেন !

এবার আসি কভার লেটার নিয়ে কাজ উপার কিছু উপায় !

আপনি এমন একটা সময় কভার লেটার লিখবেন যখন আপনি অ্যাক্টিভ থাকবেন। মানে এমন সময় বিড করবেন যার পরওঁ আপনি ১-২ ঘণ্টা অ্যাক্টিভ থাকতে পারবেন। মানে, অফ লাইনে জাবেন না। আমাদের অনেকেই করি রাতে বিড করে ঘুমিয়ে পড়ি, বায়ার মেসেস দিয়ে রাখে সকালে রেস্পন্স করি তারপর আর রেস্পন করে না । কারন হল, যারা ভাল+বড় কোম্পানির বায়ার তারা অনেক বেস্ত থাকে তাই, ২০-৩০ মিনিট ের জন্য এসে কভার লেটার পরে হায়ার করে ফেলে কাউকে। যার জন্য পরে আর রেস্পন্স পাওয়া যায় না !

কভার লেটার এর জন্য প্রথমেঃ

Hello (সরাসরি বায়ারের নাম) আমি আগে Dear sir,/ Dear Hiring manager ব্যাবহার করছি কিন্তু ঐগুলার থেকে নাম লিখে ভাল ফলাফল পাইছি!

তারপর লিখবেন, আপনি কাজটা করতে চান, কাজটা ভাল পারেন। আপনার কত সময় লাগবে কাজটা শেষ করতে ঐটা আর সাথে এমন একটা প্রশ্ন করবেন যাতে  বায়ার আপনাকে উত্তর দিতে বাধ্য থাকে। মানে, বায়ার যাতে মনে করে, না আপনি আসলেই এই কাজটা ভাল পারবেন।

এভাবে ২-৩ লাইনে লিখে ের পর লিখে দিবেন আপনার স্কাইপি আইডিটা শেয়ার করে আর ডিলেটস জানার জন্য। এতে দেখবেন আপনি ভাল রেস্পন্স পাচ্ছেন। ের পর স্কাইপি আসলে আপনাকে ধরে নিতে হবে যে, এই বায়ার যাতে অন্য কাউকে হায়ার না করে। ভাল করে বায়ারের প্রশ্নগুলার উত্তর দিবেন। তাহলেই দেখবেন আপনি কাজ পেয়ে যাবেন। এইটা হল বায়ার জমা করার সবথেকে সহজ উপায়। আর আপনি যদি ঐ কাজটা ভাল করে করতে পারেন তাহলে দেখবেন বায়ার আপনাকে আবার নক করবে নতুন কোন কাজ দেওয়ার জন্য। অ্যান্ড শেষে এমন একটা ভাল সম্পর্ক হবে যে, প্রতিটা কাজেি আপনাকে নক করবে। এভাবে কাজ করতে থাকলে দেখবেন যে, আপনার ২-৩ মাস পরে স্কাইপিতে যে বায়ারগুলা আছে তাদের কাজই শেষ করে সারতে পাচ্ছেন না আর নতুন কোন কাজ হাতে নেওয়া তো দূরে থাক 🙂

 লেখা টি  কপি করা হয়েছেঃ তন্ময় ভাই এর Facebook  পোস্ট থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *