ফাইভার এর ধারাবাহিক টীউটোরিয়ালঃ-১

ফাইভার এর ধারাবাহিক টীউটোরিয়ালঃ-১

প্রথম অধ্যায় এ আমরা জানবো একটা প্রফেশনাল কাজ করার জন্য আমাদের আসলে কি কি গুনাবলি থাকা দরকার।

১। কিউরিসিটিঃ একটা ব্যাপার হচ্ছে বাংলাদেশে MBA করে অনেক কম্পিটিশন করে পরীক্ষা দিয়ে এর পরে লবিং লাগিয়ে একটা ব্যাংকে চাকুরী পেতে আপনাকে যে পরিমান পড়া লাগবে তা বলার বাইরে। এর পরে তাদের স্যালারি হবে ২৫ থেকে ৩৫ হাজার। আর প্রতিবছর ম্যাক্সিমাম ৫ হাজার টাকা ইঙ্ক্রিমেন্ট হয়। আর ফ্রীল্যান্সিং করে আপনি ২৫ থেকে ৩৫ হাজার টাকা ইঙ্কাম করতে পারবেন কিন্তু আপনাকে কম পড়ালেখা করে, কম জেনে কাজের প্রতি আগ্রহ কম থেকে ইঙ্কাম করতে পারবেন এইটা অসম্ভব। অনেকেই মনে করে কোন ট্রেনিং সেন্টার থেকে ট্রেনিং নিয়ে ফাকিবাজি করে কোন মতে ট্রেনিং শেষ করেই হাজার হাজার ডলার ইঙ্কাম করতে পারবেন। এইটা টোটালি ভূল ধারনা। কোন কোচিং সেন্টার আপনাকে শুধু আপনার অজানা কিছু টার্ম এর নাম শিখিয়ে দিবে আর শেখার ওয়ে টা শিখিয়ে দিতে পারে এই জন্যই তাদের আপনি ১০ থেকে ১৫ হাজার টকা দিবেন। আর নিজেরা বাকীটুকু শিখে ফেলতে হবে। আর শেখার জন্য আপনাকে অবশ্যোই জানার প্রতি আগ্রহ আর শেখার প্রতি আগ্রহ বা কিউরিসিটি থাকতে হবে। আপনাকে একজন যা শিখিয়ে দিলো তাই শিখে বসে থাকলেন তাহলে আপনার দ্বারা কিচ্ছু হবেনা। একজন কিছু একটা শিখিয়ে দিলো আর আপনি তা হাতরে হাতরে , ঘেটে ঘেটে আরো কিছুদুর নিজেই শিখে ফেললেন এইরকম যদি হন তাহলে আপনি ফ্রীল্যান্সার হইতে পারবেন। তা না হইলে বাদ দিন এখুনি।

২। শেখার জন্য যথেষ্ট টাইমঃ আমার কাছে অনেকেই আসে ভাই আমার শেখার টাইম নাই আপনি আমাকে শর্ট কার্ট সিস্টেম বলে দিন আমি ঐটা ইউজ করে অন্তত ১ হাজার ডলার ইঙ্কাম করতে পারি এইরকম রাস্তা বের করে দিন। অনেকেই আমার সাথে ফেইস টূ ফেইস দেখা করতে এসে এইসব কথা বলে। আসলে আপনার যদি শেখার জন্য যথেষ্ট টাইম না থাকে আপাতত এইখাইনেই স্টপ করে দিন। শেখার জন্য টাইম যেদিন ম্যানেজ করতে পারবেন সেদিন শুরু কইরেন। অনেকেই জব করে জব থেকে বাসায় এসে পরিবারে টাইম দেয় এই কারনে শিখতে পারেন না। যারা শেখার পিছনে টাইম দেওয়ার থেকে পরিবারে টাইম দিতে ভালোবাসেন তাদের বলতেছি ভাই বর্তমানে যেই জব আছে সেটা দিয়েই তো সুখে সাচ্ছন্দে চলে যাচ্ছে কি আর দরকার এইদিকে আসা, বাদ দিন না। অনেকেই দেখাযায় একাডেমিক পড়ালেখা করে আবার বন্ধুদের সাথে নিয়মিত আড্ডা দেয় আবার ফ্রীল্যান্সিং এ টাকাও কামাইতে চাই। তাদের বলতেছি ভাই প্লিজ এইদিকে আসবেন না। যতদিন এইটাকেই প্যাশন হিসাবে নিতে না পারতেছেন ততদিন আসবেন না প্লিজ।

৩। শেখার জন্য ভাষাঃ অনেকেরই কিউরিসিটি আছে আবার টাইম আছে। আমাকে বলে শিপলু ভাই আমাকে কিছু বাংলা টীউটোরিয়াল দিন। যাতে শিখতে পারি। তাদের বলি ভাই যদি ইংরেজীতে পড়ালেখায় মনোযোগ না আসে তাহলে আপাতত বাদ দিন। আপনি কাজ করবেন ইংরেজীতে, ক্লাইন্ট কথা বলবে ইংরেজীতে টাকা নিবেন ডলারে আবার বাংলা চান। সো আপাতত বাদ দিন। একটা কথা মনে রাখবেন আপনি যদি ফ্রীল্যান্সিং এ আস্তে চান আপনি চিন্তাও করবেন ইংরেজীতে। লাইক আপনি যদি কাউকে মারার প্লান করেন তাহলে এইভাবে চিন্তা করবেন আই উইল বিট হিম অ্যাট সেভেন পি এম। ইংরেজীতে যদি দক্ষ না হোন তাহলে বেশীদুর এগুতে পারবেন না। আপনার ফ্লুয়েন্টলি আমেরিকান ইংলিশ বলতে হবেনা কিন্তু আপনাকে তাদের ইংরেজী পড়ে ও শুনে বুঝতে হবে। তাহলেই হবে। কিছু বাংলা টিউটোরিয়াল আপনার স্টাটিং এর সহায়ক হইতে পারে কিন্তু আলটিমেটলি আপনাকে ইংরেজীতেই আস্তে হবে। লাইক আপনি যদি নামাজ পরেন কিন্তু সুরা কেরাত যদি বাংলায় পড়েন তাহলে কি নামাজ হবে? হবেনা। কিন্তু নিয়ত তা বাংলায় পড়লেও হবে। তো আরবিতে যেহেতু আস্তেই হবে নিয়তটাও আরবিতে শিখে নিলেই তো হয়। এইরকম সব কিছু তো আপনাকে ইংরেজীতে করতেই হবে সো কেনো বাংলা দিয়ে শুরু করতেছেন?

৪। কঠোর পরিশ্রমীঃ আপনি যদি কঠো পরিশ্রমী হোন তাহলে এই লাইন আপনার জন্য বেস্ট আর যদি অলস হোন তাহলে আপাতত বাদ দিন।

মেনটালি পিছুটানঃ আপনার যদি মেন্টালি ডিপ্রেস হওয়ার জন্য যথেষ্ট উপাদান যেমন ঝামেলা পূর্ন গার্লফ্রেন্ড, রাজনিতি, সোসাল ওয়ার্ক ইত্যাদি থাকে তাহলে বাদ দিন। আপনার দ্বারা হবেনা। মনে রাখবেন এইটা মাটি কাটার কাজ না যে মন যেমন তেমন থাকুক শরীরে শক্তি থাকলেই কাজ করতে পারেন। এইটা বুদ্ধি ও ব্রেনের কাজ সো আপনার ব্রেন কে সুস্থ থাকতে হবে।

কাজ না শিখে হাজার হাজার ডলার কামানোর ইচ্ছাঃ আপনার যদি কাজ না শিখেই হাজার হাজার ডলার কামানোর ইচ্ছা থাকে তাহলে আপনি আপাতত বাদ দিন। যারা আজকে হাজার হাজার ডোলার ইঙ্কাম করে তারা একদিন মাত্র ৫ থেকে ১০ ডলার ইঙ্কাম করতো। আমার প্রথম ইঙ্কাম ছিলো ২৫ ডলার। এখন যদি আপনি আমার বর্তমান ইঙ্কামের সমান ডলার ইঙ্কাম চিন্তা করেন তাহলেতো হবেনা আপনাকে ২৫ ডলার বা তার থেকে কম ইঙ্কামএর চিন্তা করতে হবে। আর টাকার পিছনে ছোটা যাবেনা। কাজ শেখা ও জানার পিছনে ছুটুন এম্নিতেই কাজ আসবে।

নেট নাই, পিসি নাই/ ডিস্টার্বঃ ভাই এইখানে কাজ করার মেইন জিনিস হচ্ছে নেট আর পিসি। এই দুইটা জিনিস যদি আপনার খারাপ থাকে আপাতত বাদ দিন।

৫। টাইম জ্ঞানঃ আপনার যদি টাইম জ্ঞান কম থাকে তাহলে দয়াকরে আসবেন না। কারন আপনি ডিলে কাজ ডেলিভারির জন্য সব সময় খারাপ ফিডব্যাক পাবেন।

সিরিয়াসনেসঃ আপনি যদি আপনার কাজের ব্যাপারে সিরিয়াস না হোন তাহলে বাদ দিন। একটা লোক আপনাকে দিয়ে একটা কাজ করিয়ে নিবে কারন আপনার কাজ দিয়ে সে টাকা ইঙ্কাম করবে। তারা এও ব্যাপারে সিরিয়াস সো আপনাকেও সিরিয়াস হইতে হবে।

৬। মটিভেষনঃ আপনি যদি মটিভেটেড না হোন তাহলে দয়াকরে বাদ দিন। এই লাইনে আসবো কি আসবোনা। আমার দ্কাবারা কাজ হবে কি হবেনা, আমি পারবো কি পারবোনা। ভবিষ্যত এর অবস্থা কি যেনো হয়। এইরকম হাজার ধরনের সন্দেহ থাকলে দয়াকরে বাদ দিন। যারা আসবেন মটিভেটেড থাকতে হবে।

এর পরে যারা যারা থাকবেন নেক্সট পোস্টের জন্য ওয়েট করুন। কথা মত কাজ করবেন আর নিজের ইচ্ছায় শেখার ট্রায় করবেন আশাকরি খুব দ্রুত ডলার উরে উরে এসে আপনার একাউন্টে ঢুকবে। কিন্তু যদি তা না করেন তাহলে টাইম মানি সব কিছুই লস আর একটা স্বপ্নের মৃত্যু ঘটবে।

বিঃদ্রঃ এই লেখাটি আপনার ভালো লাগলে শেয়ার করে সবাইকে জানানোর সুযোগ করে দিন। আর কারো যদি কোন পাব্লিক ব্লগ যেমন টেকটিউন্স বা সামহোয়াইর ইন ব্লগ বা অন্য কোথায় আইডি থাকে তাহলে সেদিকেও দিতে পারেন। আমার উদ্যেশ হচ্ছে মানুষের যাতে কাজে লাগে লেখাটা কোন ব্লগে থাকলে ইজিলি পাওয়া যাবে। স্টাটাস কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাবে। যে কোন যেখানে ইচ্ছা শেয়ার করতে পারবেন বাট আমাকে ক্রেডিট দিতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *